• বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৭, ৯ ভাদ্র ১৪২৪
  • ||
  • আর্কাইভ

উত্তর জেলা আ: লীগের শোক দিবসের আলোচনা সভা

বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে স্বাধীন বাংলাদেশের সৃষ্টিই হতো না: ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ

প্রকাশ:  ১২ আগস্ট ২০১৭, ২২:৫৯
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, বাঙালির হাজার বছরের পরাধীনতার ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে স্বাধীন বাংলাদেশের সৃষ্টিই হতো না।  একাত্তরের পরাজিত শক্তি ও জাতীয়-আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রকারীরা পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু মুজিবকে স্বপরিবারে হত্যা করেছিল।

খুনিরা মনে করেছিল বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে দেশকে পাকিস্তানি ভাবধারায় ফিরিয়ে নিয়ে যাবে; কিন্তু তাদের স্বপ্ন দু:স্বপ্নে পরিণত হয়েছে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে জাতির সমস্ত অর্জন ধংস ও দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা ব্যহত করা হয়। আল্লাহর রহমতে বাংলার জনগণের সমর্থন নিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা রাস্ট্র ক্ষমতায় এসে দেশকে উন্নয়ন-অগ্রগতি ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। তিনি দৃঢ়তার সাথে বলেন, বাংলাদেশের মাঠিতে পঁচাত্তরের মত আর কোন ষড়যন্ত্র হতে দেয়া হবে না।

 ২০০১ সালে বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে ২৫ হাজার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী হত্যা করা হয়েছে। আন্দোলনের নামে পেট্রোল বোমা মেরে জীবন্ত মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করে বাংলাদেশের মাটিতে তাদের রাজনীতি করার কোন অধিকার নেই। তাদেরকে রাজনীতির মাঠে প্রতিহত করার জন্য তিনি আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানান। 

আজ  শনিবার বিকেলে নগরীর মুসলিম হলে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। সংগঠনের সভাপতি সাবেক সাংসদ ও রাস্ট্রদূত নুরুল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ জসিম উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, সাবেক মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এম.পি, রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এম.পি, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম.এ সালাম, সীতাকুন্ডের সাংসদ দিদারুল আলম।

 উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অধ্যাপক মোঃ মঈনুদ্দিন, এড. ফখরুদ্দিন চৌধুরী, সিরাজুদৌল্লাহ চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক ইউনুস গণি চৌধুরী, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শেখ শফিউল আজম, এটিএম পেয়ারুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল আনোয়ার চৌধুরী বাহার, পৌর মেয়র দেবাশীষ পালিত, কোষাধ্যক্ষ উপজেলা চেয়ারম্যান এহেসানুল হায়দর চৌধুরী বাবুল, কৃষি সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আলী শাহ, ধর্ম সম্পাদক শাহজাহান সিকদার, দপ্তর সম্পাদক মহিউদ্দিন বাবলু, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক জসিম উদ্দিন শাহ, শিক্ষা ও মানব সম্পদ সম্পাদক বেদারুল আলম চৌধুরী বেদার, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ইঞ্জি. মোঃ হারুন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক আবুল কাশেম চিশতি, আইন সম্পাদক এড. ভবতোষ নাথ, উপদপ্তর সম্পাদক আলাউদ্দিন সাবেরী, উপদেষ্টা সদস্য এড. এম এ নাসের চৌধুরী, কার্যনির্বাহী সদস্য মহিউদ্দিন রাশেদ, মঞ্জুরুল আলম চৌধুরী মঞ্জু, দিদারুল আলম বাবুল, আলহাজ্ব জাফর আহমেদ, ফোরকান উদ্দিন আহমেদ। 

এস.এম শফিউল আজম, মোঃ শওকত আলম, এড. আবুল হাশেম, কাজী মোঃ ইকবাল, শাহনেওয়াজ চৌধুরী, মোঃ ইদ্রিস, লেয়াকত চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদদের মধ্যে আব্দুল্লাহ আল বাকের ভূঁইয়া, জাহাঙ্গীর কবীর চৌধুরী, ইঞ্জি. শামসুল আলম চেয়ারম্যান, বশির উদ্দিন খান, উত্তর জেলা কৃষক লীগ সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় যুবলীগ সহসম্পাদক মোঃ সেলিম উদ্দিন, মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি দিলোয়ারা ইউসুফ, উত্তর জেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক এস.এম রাশেদুল আলম, মহিলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এড. বাসন্তী প্রভা পালিত, কেন্দ্রীয় যুবলীগ সদস্য রাশেদ খান মেনন, শেখ ফরিদ চৌধুরী, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি বখতেয়ার সাঈদ ইরান, সাধারণ সম্পাদক আবু তৈয়ব প্রমুখ। 


বিশেষ অতিথি ড. হাছান মাহমুদ বলেন, দেশে রাষ্ট্রপতি, সংবিধান ও পার্লামেন্ট বহাল আছে; কিন্তু মাননীয় প্রধান বিচারপতি রাগ-বিরাগ অনুরাগের বশবর্তী হয়ে শপথ ভঙ্গ করে ষোড়শ সংশোধনী বাতিল, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে খাটো ও সংবিধান লংঘন করেছেন। তিনি বলেন জিয়া মোস্তাকই বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের মূল ষড়যন্ত্রকারী। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডে জড়িতদের বিচার হলেও ষড়যন্ত্রকারী কুশীলবদের বিচার হয়নি। বাংলাদেশের মাটিতে ভবিষ্যতে তাদেরও বিচার হবে। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর আওয়ামী লীগ বারেবারে সংকটে পড়েছে। কিন্তু আওয়ামী লীগের কর্মীরা জানে কিভাবে সংকট মোকাবেলা করতে হয়।